রাজ্যে উদ্বৃত্ত কাঠ রপ্তানিতে ছাড়পত্র দিল মন্ত্রিসভা
On 7 Nov, 2018 At 01:23 AM | Categorized As Main Slideshow | With 0 Comments

নিজস্ব প্রতিনিধি, আগরতলা, ৬ নভেম্বর৷৷ রাজ্যে উদ্বৃত্ত কাঠ রপ্তানিতে ছাড়পত্র দিয়েছে মন্ত্রিসভা৷ সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ মেনে ধর্মনগর রেল স্টেশন থেকে বর্হিরাজ্যে কাঠ রপ্তানি করা যাবে৷ তাতে ফি সংগ্রহ করবে রাজ্য সরকার৷ ফলে, কাঠ ব্যবসায়ী এবং রাজ্য উভয়ই উপকৃত হবে বলে মনে করেন শিক্ষামন্ত্রী  রতন লাল নাথ৷ তাঁর কথায়, মন্ত্রিসভার এই সিদ্ধান্তে রাজ্যের কোষাগারে ১ কোটি ২৬ লক্ষ ৩৫ হাজার টাকা জমা পড়বে বলে আশা করা হচ্ছে৷ এদিকে, স্বাবলম্বন প্রকল্পকে মুদ্রা লোন, স্টার্ট অ্যাপ ইন্ডিয়া এবং স্ট্যান্ড্যাপ ইন্ডিয়া প্রকল্প গুলির সাথে জুড়ে দেওয়া হয়েছে৷ তাতে ঋণ গ্রোহীতারা উপকৃত হবেন বলে দাবি করেন শিক্ষামন্ত্রী৷

এদিন শিক্ষামন্ত্রী জানান, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী এখন থেকে রাজ্যের উদ্বৃত্ত কাঠ বর্হিরাজ্যে পাঠানো যাবে৷ কাঠ রপান্তিতে রাজ্য মন্ত্রিসভা ছাড়পত্র দিয়েছে৷ তাঁর কথায়, আগে রাজ্যের কাঠ অন্য রাজ্যে পাঠানো যেতোনা৷ তবে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী কাঠের লগ বর্হিরাজ্যে পাঠানো যাবেনা৷ তিনি জানান, পি সি সি এফ এর নেতৃত্বে ছয় জনের কমিটি সমীক্ষা করে জানিয়েছেন রাজ্যে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৫৫১০ ঘনমিটার এবং ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৪৮৩৮৯৪ ঘনমিটার কাঠ উদ্বৃত্ত রয়েছে৷ যার বাজার মূল্য ৪৩ কোটি ৩২ লক্ষ টাকা৷ রাজ্য মন্ত্রিসভা গতকাল বর্হিরাজ্যে কাঠ পাঠানোর সিদ্ধান্ত অনুমোদন করেছে৷ সিদ্ধান্ত হয়েছে কাঠ পাঠানোর জন্য প্রতি ঘনমিটার ১০০ টাকা করে ফিস নেওয়া হবে৷ তাতে এই কাঠ থেকে ফিস হিসেবে রাজ্য সরকার ১ কোটি ২৬ লক্ষ ৩৫ হাজার টাকা পাবে৷ সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সারা দেশের ১৩টি রেল স্টেশন থেকেই ওয়াগনে কাঠ অন্যরাজ্যে পাঠানো যাবে৷ তাতে ত্রিপুরার শুধুমাত্র ধর্মনগর স্টেশন রয়েছে৷

স্বাবলম্বন প্রকল্পে ঋণ গ্রহীতাদের জন্য আগে কোনও সঠিক গাইডলাইন ছিলনা৷ গতকাল রাজ্য মন্ত্রিসভার বৈঠকে স্বাবলম্বন প্রকল্পে ঋণ গ্রহীতাদের জন্য বিভিন্ন গাইডলাইন অনুমোদন করা হয়েছে৷ আজ সচিবালয়ে গতকাল অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বিভিন্ন সিদ্ধান্ত সাংবাদিকদের অবহিত করেন শিক্ষামন্ত্রী রতনলাল নাথ৷ শিক্ষামন্ত্রী সাংবাদিকদের জানান, আগে স্বাবলম্বন প্রকল্পে ঋণ পাওয়ার জন্য আবেদনপত্রের মাধ্যমে আবেদন করতে হতো৷ এখন থেকে আগ্রহীরা অনলাইনে আবেদন করবেন৷ এখন সর্বোচ্চ ১ কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণ পাওয়া যাবে৷ রাজ্য সরকার বেকার যুবক যুবতীদের দক্ষতা উন্নয়নের প্রশিক্ষন দিচ্ছেন৷ সিদ্ধান্ত হয়েছে স্বাবলম্বনে ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে যেন দক্ষতা উন্নয়নে প্রশিক্ষণ প্রাপকদের অগ্রাধিকার দেওয়া হয়৷ ঋণ গ্রহীতাদের বয়স হতে হবে ১৮ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে৷ সাংবাদিক সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী জানান, স্বাবলম্বন প্রকল্পের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী মুদ্রা যোজনা, স্টার্ট আপ ইন্ডিয়া, ষ্ট্যান্ড আপ ইন্ডিয়া প্রকল্পগুলোকেও যুক্ত করা হয়েছে৷ যারা স্বাবলম্বন প্রকল্পে ঋণ নেবেন তাদের জন্য বীমা করা হবে৷ বীমার প্রিমিয়ামের প্রথম কিস্তি রাজ্য সরকার বহন করবে৷ শিক্ষামন্ত্রী জানান, ঋণ গৃহীতারা যেন তারাতারি টাকা পান তার জন্যও গাইডলাইন স্থির করা হয়েছে৷ তিনি জানান, আগে ঋণ পেতে বিভিন্ন ধরনের অসুবিধা হতো৷ এখন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে কেউ জুন মাসের মধ্যে অনলাইনে আবেদন করলে ৪৫ দিনের মধ্যে জেলা কমিটিকে সুবিধাভোগী বাছাই করতে হবে৷ ব্যাঙ্কগুলিকে ৩০ দিনের মধ্যে সুবিধাভোগীকে ঋণ প্রদান করতে হবে৷ রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে ঋণগ্রহীতার ৭ দিনের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে৷ স্বাবলম্বন প্রকল্পে প্রার্থী বাছাই করার জন্য আগে চারটি কমিটি ছিল৷ বর্তমানে মহকুমঝনা স্তরেও কমিটি গঠন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে৷ এদিন শিক্ষামন্ত্রী রাজ্যবাসীকে দীপাবলির শুভেচ্ছা জানিয়েছেন৷

Leave a comment


Powered By JAGARAN – The first daily of Tripura ::: Design & Maintained By CIS SOLUTION