হাওড়া ও চাম্পাছড়ায় জলাধার তৈরীতে ডোনারের অনুমোদন
On 22 Jul, 2018 At 02:52 AM | Categorized As Main Slideshow | With 0 Comments

নিজস্ব প্রতিনিধি, আগরতলা, ২১ জুলাই ৷৷ চম্পকনগরের কাজে হাওড়া নদীর উজানে বৃষ্টির জল সংরক্ষণের জন্য জলাধার, কাটাখালের সংস্কার সহ চাম্পাবাড়ির নিকটে চাম্পাছড়ার উপর বৃষ্টির জল সংরক্ষণের জলাধার তৈরী করার দুটি ত্রিপুরা জেলায় সিভিল ওয়ার্ক সহ কাঞ্চনপুরে একটি ১৩২ কেভি সাবস্টেশন নির্মাণ করা এবং উত্তর ত্রিপুরা জেলায় সিভিল ওয়ার্ক সহ কাঞ্চনপুর থেকে একটি সিঙ্গেল সার্কিট ট্রান্সমিশন লাইন স্থাপন করার জন্য ৩৪ কোটি ৬ লক্ষ টাকার প্রকল্পও মঞ্জুর করেছে ডোনার৷ হাওড়া এবং চাম্পাছড়ায় জলাধার তৈরীর জন্য মোট ব্যয় হবে ১৭৯ কোটি ৮৫লক্ষ টাকা৷

উত্তর-পূর্বাঞ্চল বিশেষ পরিকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পগুলি নিয়ে ডোনারের ইন্টার মিনিস্ট্রিয়াল কমিটির সভা গতকাল অনুষ্ঠিত হয়৷ তাতে ডোনারের অর্থে রূপায়ণ করার জন্য উত্তর-পূর্বের বিভিন্ন প্রকল্প অনুমোদন পায়৷ এর মধ্যে ত্রিপুরার জন্য এই তিনটি প্রকল্প রয়েছে৷ হাওড়া নদী এবং চাম্পাছড়াতে জলাধার তৈরী করলে শুধু বন্যা নিয়ন্ত্রণ এবং সেচের সুযোগই তৈরী হবে তা নয়, আগরতলা শহরে পানীয় জলের সমস্যারও সমাধান হবে৷ ভবিষ্যতে পর্যটনের জন্য এই জলাধারগুলিতে জলক্রীড়া এবং অন্যান্য কার্যক্রমের ব্যবস্থা করার প্রস্তাবও রয়েছে৷ বিদ্যুৎ পরিকাঠামোর প্রকল্পটি হলো -কাঞ্চনপুরের একটি ১৩২ কেভি সাবস্টেশন স্থাপন করা এবং কাঞ্চনপুর থেকে ভাংমুন পর্যন্ত ১৩২ কেভি ট্রান্সমিশন লাইন টানা৷

বিস্তারিত আলোচনার পর কিমিটি তিনটি প্রকল্প নীতিগতভাবে মঞ্জুরি দিয়েছে৷ অর্থের জন্য ডি পি আর পেশ করার পর প্রকল্পগুলি রূপায়ণ শুরু করা হবে৷

এই তিনটি প্রকল্পের অনুমোদন রাজ্য সরকারের একটি উল্লেখ্যযোগ্য সাফল্য৷ তাতে নদী ও ছড়ার তীরবর্তী এলাকার বসবাসকারী মানুষের উপকার হবে৷ দুটি জলাধার তৈরী হলে এবং সেচ ব্যবস্থার প্রসার হলে ফসলের উৎপাদন ২২ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি পেতে পারে৷ তাছাড়া ব্যাপক বন্যার সমস্যা নিয়ন্ত্রণ ছাড়াও আগরতলা শহরে পনীয় জলের সুযোগ নিশ্চিত হবে৷ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের মাঝে বিরাট দুটি জলাধারে পর্যটনের বিরাট সম্ভাবনা সৃষ্টি হবে৷ বিদ্যুৎ কাঠামো তৈরী হলে পর্যটন কেন্দ্র জম্পুইহিল এবং কাঞ্চনপুরে বিদ্যুৎ পরিষেবা সুনিশ্চিত হবে৷

Leave a comment


Powered By JAGARAN – The first daily of Tripura ::: Design & Maintained By CIS SOLUTION