কৃতিদের পছন্দ ইঞ্জিনীয়ারিং/ডাক্তারী, অধ্যাপনায় অনিহা
On 7 Jun, 2017 At 02:48 AM | Categorized As Main Slideshow | With 0 Comments

নিজস্ব প্রতিনিধি, আগরতলা/বিলোনীয়া/উদয়পুর/বিশালগড়/অমরপুর, ৬ জুন৷৷ টিবিএসসি’র মাধ্যমিক পরীক্ষায় কৃতির তালিকায় প্রথম দশে এবার যুগ্মভাবে ১৮ জন স্থানাধিকারী৷ সেরা তালিকার মধ্যে শিশু বিহার সুকলের একচেটিয়া আধিপত্য৷ পাঁচটি স্থান দখল করেছে৷ শহরের বনেদি সুকল নেতাজী সুভাষচন্দ্র বিদ্যানিকেতন, উমাকান্ত, মহারাণী তুলসিবতী সহ একাধিক সুকল তালিকায় স্থান পায়নি৷ কৃতিদের সবাই চিকিৎসক ও প্রকৌশলী হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন৷ শিক্ষকতায় কেউ আসতে নারাজ৷
অর্ণব চৌহান -প্রথম ঃ শিশু বিহার সুকলের প্রধান শিক্ষকের সুযোগ্য পুত্র অর্ণব চৌহানৈ৷ ৬৮৭ নম্বর পেয়ে সেরার সেরা হয়েছেন৷ ৭টি বিষয়েই লেটার৷ ফিজিক্স নিয়ে রিসার্চ ওয়ার্ক করে এগুতে চায় সে৷ ৭ ঘন্টা দৈনিক পড়াশুনা করত৷ সফলতার জন্য প্রাধান্য দিয়েছে মাকে৷ পাঠ্যপুস্তক ভালোভাবে অধ্যায়নে ভালো ফল হবে আশাবাদী অর্ণব৷
দ্বিতীয় প্রিদীতি দাস , অমরপুর ইংরেজি মাধ্যম সুকলের ছাত্রী প্রিদীতি দাস৷ দৈনিক ৭ ঘন্টা পড়াশুনা করত৷ গান, নাটক পছন্দ৷ প্রাপ্ত নম্বর ৬৭১৷ ৭টি বিষয়ে লেটার৷ ভাবীদিনে বায়োলজি নিয়ে পড়াশুনা করে চিকিৎসক হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন তিনি৷
তৃতীয় সাগর চক্রবর্তী , শিশু বিহার সুকলের মেধাবী ছাত্র সাগর আইটিআই তে পড়তে ইচ্ছুক৷ বাবা সুধাংশু দেবনাথ শিক্ষা দপ্তরে কর্মরত৷ মা মীরা দেবনাথ গৃহিনী৷ প্রাপ্ত নম্বর ৬৬৮৷ সমস্ত বিষয়েি লেটার পেয়েছেন৷ খেলাধূলা ক্রিকেটের মধ্যে রোহিত শর্মা প্রথম পছন্দ৷
পৃদিতী দাস – দ্বিতীয় ঃ সব বিষয়ে লেটার মার্ক সহ ৬৭১ নম্বর পেয়ে মেধা তালিকায় দ্বিতীয় স্থান দখল করেছে অমরপুর ইংলিশ মিডিয়াম সুকলের ছাত্রী পৃদিতী দাস৷ সাক্ষাৎকালে সে জানিয়েছে ভবিষ্যতে ডাক্তার হতে চায়৷ দৈনিক বারো ঘন্টার মতো পড়াশুনা করেছে৷ বাবা পিন্টু রঞ্জন দাস ব্যবসায়ী৷ মেয়ের এই সাফলে তিনি বেজায় খুশী৷
কৃষ্ণেন্দু সাহা – যুগ্ম চতুর্থ ঃ উদয়পুর ইংলিশ মিডিয়াম সুকলের ছাত্র কৃষ্ণুন্দু ডাক্তার হতে চায়৷ এবছর মাধ্যমিক পরীক্ষায় সব বিষয়ে লেটার মার্ক সহ ৬৪৪ নম্বর পেয়ে কৃতি তালিকায় যুগ্মভাবে চতুর্থ হয়েছে৷ দৈনিক সাত ঘন্টা পড়াশুনা করেছে৷ বাবা যদুলাল সাহা ফিসারী আধিকারীক৷ মা রূপা সাহা গৃহিনী৷ পড়াশুনার পাশাপাশি সে খেলাধুলা, বই পড়া ইত্যাদিতে তার মনোযোগ রয়েছে৷
চতুর্থ আকাশ মজুমদার , মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে আকাশ৷ বিলোনিয়া গভঃইংলিশ মিডিয়াম সুকলের ছাত্র৷ প্রাপ্ত নম্বর ৬৬৪৷ ইঞ্জিনিয়ার কিংবা চিকিৎসক হবে আশা ব্যক্ত করেন তিনি৷
দীগন্ত বৈদ্য-ষষ্ঠ , দক্ষিণের বৃন্তান্ত শিক্ষা নিকেতনের ছাত্র দীগন্ত বৈদ্য সেরা দশের মধ্যে ষষ্ট হয়েছেন৷ প্রাপ্ত নম্বর ৬৬০৷ লক্ষ্য একটাই ডাক্তার কিংবা ইঞ্জিনিয়ার৷ শিক্ষকতা করে এগুনে অনীহা৷ কারিগরী ক্ষেত্রে পড়ার ইচ্ছা রয়েছে জানান তিনি৷
সপ্তম, পৌলমী মজুমদার , প্রাপ্ত নম্বর ৬৫৯৷ বিবেকানন্দ শিশু নিকেতনের ছাত্রী পৌলমী দৈনিক ৬-৭ ঘন্টা অধ্যায়ন করত৷ গান শুনতে ভালবাসে৷ কারিগরী ক্ষেত্রে পড়াশুনা করে জীবনে প্রতিষ্ঠিত হবে বলে আশাবাদী তিনি৷
সৌরভ পোদ্দার-সপ্তম , রামকৃষ্ণ বিবেকানন্দ বিদ্যামন্দিরের ছাত্র সৌরভ ৬৫৯ নম্বর পেয়ে যুগ্মভাবে সপ্তম হয়েছেন৷ বাবা সুজিত লাল পোদ্দার স্বাস্থ্য দপ্তরে কর্মরত৷ মা গৃহিনী৷ কারিগরী বিষয়ক ক্ষেত্রে ঝোঁক থাকার ইচ্ছা প্রকাশ করেন৷ পড়ার ফাঁকে তবলা বাজাতে ভালোবাসে৷ ৭জন গৃহশিক্ষক সহযোগিতা করেছেন বলে জানান তিনি৷
ইমন পোদ্দার-যুগ্ম দশম, রামকৃষ্ণ বিবেকানন্দ বিদ্যামন্দিরের মেধাবী ছাত্র ইমন ৬৫৬ নম্বর পেয়ে প্রথম দশে জায়গা করতে সক্ষম হয়েছে৷ বাবা নিত্যানন্দ পোদ্দার এবং মা জয়ন্তী পোদ্দার সহযোগিতা করছেন প্রতিক্ষেত্রে৷ গৃহশিক্ষক ৭ জন৷ রুটিন মাফিক পড়াশুনা নয়, ইচ্ছার উপর নির্ভর করে পড়াশুনা করত৷ আগামীদিনে চিকিৎসক হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন৷
যুগ্মভাবে চতুর্থ হয়েছে ৫ জন, ৭ম ২জন, ৮ম ২ জন, ৯ম ২জন এবং দশম ২ জন সবাই গৃহশিক্ষকদের পাশাপাশি মা বাবাকে সাফল্যের অংশীদার করেছেন৷ সুকলের নাম উজ্জ্বল করে কেউ শিক্ষকতা করার ইচ্ছা প্রকাশ করেনি৷ কারিগরী ক্ষেত্রে ইঁদুর দৌড়ে ভাবী প্রজন্ম শিক্ষক পাবে না মেধাবীদের মধ্য থেকে দিনের অলোর মতো পরিষ্কার৷
ত্রিপুরা মধ্যশিক্ষা পর্ষদের মাধ্যমিক পীরক্ষার ফলাফলে বিশালগড়ের প্রথম ৩জন প্রথম দশে স্থান করে নিয়েছে৷ এরমধ্যে যুগ্মভাবে চতুর্থ, যুগ্মভাবে সপ্তম এবং যুগ্মভাবে দশম স্থান রয়েছে যথাক্রমে মহুলমিতা লস্কর, পৌলমী মজুমদার এবং অরিন্দম দেবনাথ৷
মহুলমিতা লস্করের বাবা পিযুষ কান্তি লস্কর গ্রামীন ব্যাঙ্ক কর্মী৷ মা তৃপ্তি দাস শিক্ষিকা৷ বাড়ি সোনামুড়া, ধলিয়াই৷ অফিসটিলা ভাড়া থাকেন৷ মেয়ে বিবেকানন্দ শিশু নিকেতন বিদ্যালয়ে ছোট বেলা থেকে পড়াশুনা করে আজ মাধ্যমিক চতুর্থ স্থান দখল করে৷ ৭ জন গৃহশিক্ষক৷ পছন্দ টিভিতে কার্টুন দেখা, নাচ, গান৷ মোটনম্বর পেয়েছে ৬৬৪ বাংলা-৮৫, ইংরেজি-৯৬, ইতিহাস-৯১, ভূগোল-১০০, অংক-১০০, ভৌতবিজ্ঞান-৯৪ এবং জীবনবিজ্ঞান-৯৮,(দৈনিক ৪/৫ ঘন্টা পড়াশুনা করেছে) ডাক্তার হতে চায়৷
পৌলমী মজুমদার বিবেকানন্দ শিশু নিকেতন (বেসরকারী বিদ্যালয়) প্রাপ্ত নম্বর ৬৫৯, বাবা পার্থ প্রতীম মজুমদার, (রাজনীতিবিদ) মাতা-গার্গী চৌধুরী(ত্রিপুরা বিশ্ব বিদ্যালয়ের অশিক্ষক কর্মী) সব বিষয়ে লেটার মার্কস পেয়েছে৷ ভুগোল-১০০, ইংরেজি-৯৭, অংক-৯৯, ভৌতবিজ্ঞান-৯৮, জীবনবিজ্ঞান-৯২, ইতিহাস-৯১, বাংলা-৮২(দৈনিক ৭ ঘন্টা পড়াশুনা করেছে) ডাক্তার হতে চায়৷ বাড়ি অফিসটিলায়৷
অরিন্দম দেবনাথের বাবা মৃণাল কান্তী দেবনাথ (সাধারণ ব্যবসায়ী) মাতা তাপসী দেবনাথ (গৃহিনী) দৈনিক ৮ ঘন্টা পড়াশুনা করে তার সাফল্যে খুব খুশি বাবা, মা ও সরকারি বিশালগড় ইংলিশ মিডিয়াম দ্বাদশ শ্রেণী বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষিকাগণ৷ তার প্রাপ্ত নম্বর ৬৫৬ বাড়ি রাস্তার মাথা এলাকায়৷ ৫ জন গৃহশিক্ষক দ্বারা পড়াশুনাে করেছে৷ পছন্দ কুইজ/ক্রিকেট খেলা নমবশ্রেণীতে পড়ার সময় গান শিখেছিল৷ বাংলা-৯৩, ইংরেজি-৯৫, ইতিহাস-৯১, ভূগোল-৯৪, ভৌতবিজ্ঞান-৯১, অংক-৯৯, জীবনবিজ্ঞান-৯৩৷ বিশালগড়ে বিবেকানন্দ শিশু নিকেতনে (বেসরকারী সুকল) ভূগোল বিষয়ে ৫ জন ত্রিপুরায় ১০০ নম্বর পেয়েছে৷ সে ভবিষ্যতে ডাক্তার হতে চায়৷

Leave a comment


Powered By JAGARAN – The first daily of Tripura ::: Design & Maintained By CIS SOLUTION