ঝ িক্ক-ঝামেলা পেড়িয়ে মনোরম সিকিমে
On 13 Apr, 2013 At 07:55 PM | Categorized As Travel | With 2 Comments

সবুজ পাহাড় পেরলেই হাতছানি দেয় বরফসাদা পাহাড়চূড়ার সারি৷ আর তাঁর মায়াবী আকর্ষণে পর্যটকরা ভিড় জমায়বাংলার পড়শিরাজ্য সিকিমে৷ পথচলার ঝ িক্ক-ঝামেলা দূরে সরিয়ে খুব সহজেই পৌঁ ছে যাওয়া যায় সেই পাহাড়িয়া দেশে৷ পুরো সিকিম রাজ্যটাই হিমালয়ের এ পাহাড় থেকে সে পাহাড়ে ছড়িয়ে৷ তারই মাঝে ছড়িয়ে আছে অজস্র ছুটির ঠিকানা৷ কোনওটা চেনা অবার কোনওটা অচেনা৷ বছরভর শীতের আমেজ আর তরতাজা আবহাওয়া অবসন্ন শরীরটাকে চাঙ্গা করতে টনিকের মতো কাজ দেয়৷ তাই কোলাহলমুখর নগরজীবন থেকে পালিয়ে গিয়ে দু’দরে বিশ্রাম নিতে চলুন ঘুরে আসা যাক সিকিম থেকে৷

কলকাতা থেকে ট্রেনে নিউজলপাইগুড়ি পৌঁ ছে সেখান থেকে গাড়ি নিয়ে ছুূট লাগান সিকিমের পথে৷ প্রথম গন্তব্য পেলিং৷ পশ্চিম সিকিমের মনভোলানো সৌন্দর্যের খনি পেলিং কাঞ্চনজঙ্ঘা হিমশৃঙ্গের কোল ঘেঁষে দাঁড়িয়ে আছে৷ পাহাড় জুড়ে সবুজের রাজ্যপাট৷ পাহাড় ঘুরে ঘুরে গাড়ি যাবে সেই স্বপ্নের দেশে৷ রাস্তার অবস্থা খুব একটা খারাপ নয়৷ পথের প্রকৃতি মন ক্যামেরা ব িন্দ করতে করতে প্রায় ১৩৫ কিলোমিটার যাত্রাপথ কখন যে ফুরিয়ে যাবে টের পাবেন না৷ পেলিংয়ের ৯ কিলোমিটার আগে গেজিং ব্যস্ত শহর৷ শহরটাকে পাশকাটিয়ে গাড়ি ধরবে পেলিংগামী পাহাড়ি রা স্তা৷ এই পথটায় দু’পা েসবুজ গাছের মিছিল৷ গাড়ি উঠতে থাকবে চড়াই পথ বেয়ে উপরের দিকে৷ একসময় প্রচীন এই গ্রাম ছিল লোকচক্ষুর আড়ালে৷ আর তখন সিকিমের জনপ্রিয় পর্যটনকেন্দ্র৷ পাহাড়ের গায়ে ধাপে ধাপে গড়ে উঠেছে অজস্র হোটেল-রিসর্ট৷ এই হোটেল পাড়াটাকে বাদ দিলে চারপাশটা বেশ নির্জন৷ কাছে-দুরে পাহাড় আর গাছ-গাছালির ফাঁক দিয়ে উঁকি মারে গ্রাম্য বাড়িঘর৷ নিউজলপাইগুড়ি থেকে সকালে রওনা দিয়ে পেলিং পৌঁছাতে বেলা গড়িয়ে যাবে৷ পছন্দের হোটেলে রাত কাটানোর ব্যবস্থা আগে করা থাকলে ভালো৷ অগ্রিম হোটেল বুকিং না থাকলেও খুব একটা অসুবিধে নেই৷ একটু ঘুরে দেখলেই ভালো হোটেলের সন্ধান মিলবে৷ পেলিংয়ের বেশিরভাগ হোটেলই কাঞ্চনজঙ্ঘামুখী৷ হোটেলের জানালা কিংবা ঘরলাগোয়া বারান্দা থেকে ঝলমলে রৌদ্রোজ্জ্বল দিনে দেখা মেলে কাঞ্চনজঙ্ঘা হিমশৃঙ্গ৷ সারা িদনের দীর্ঘ পথযাত্রার শেষে পেলিং পৌঁছে শুধুমাত্র বিশ্রামের পালা৷ প্রায় ৬০০০ফুট উচ্চতার এই পাহাড়ী জনপদে রাত নামে তাড়াতাড়ি৷

পর িদন সকালে উঠে ধোঁয়া উঠা চায়ের কাপ নিয়ে চলে আসুন হোটেলের বারান্দায়৷ চোখের সামনে নীল-আকাশের বুকে জলছবির মতো ফুটে উঠেছে শ্বেতশুভ্র কাঞ্চনজঙ্ঘা সহ একগুচ্ছ হিমশৃঙ্গ৷ সূর্যের প্রথম আলো র িঙ্গন খেলায় মেতে উঠেছে হিমালয়ের শৃঙ্গরাজি৷ পেলিং দর্শনের জন্যে এখানে দিন-তিনেক থাকুন৷ হাওয়া বদলে এসে অযখা তাড়াহুড়োয় কোনও মানেই হয় না৷ ধীরে সুস্থে ঘুরে দেখুন আশপাশের দ্রষ্টব্যস্থান৷ ঘোরার জন্যে সব হোটেলেই গাড়ির ব্যবস্থা রয়েছে৷

Displaying 7 Comments
Have Your Say
  1. eebest8 seo says:

    Hey There. I found your blog using msn. This is a very well written article. I’ll make sure to bookmark it and come back to read more of your useful info. Thanks for the post. I will definitely comeback.

  2. F*ckin’ remarkable things here. I am very satisfied to see your post. Thank you so much and i am having a look forward to touch you. Will you kindly drop me a mail?

  3. Really enjoyed this article post. Keep writing.

  4. wow, awesome blog.Really looking forward to read more. Great.

  5. Im grateful for the blog post.Really thank you! Keep writing.

  6. EndaGMertens says:

    I am actually grateful towards the holder on this website having
    shared this enormous bit of writing at here.

  7. Great article.Really looking forward to read more. Much obliged.

Leave a comment


Powered By JAGARAN – The first daily of Tripura ::: Design & Maintained By CIS SOLUTION